জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন বিজেএসসি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

সহকারী জজ নিয়োগের জন্য বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন (বিজেএসসি) বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে। সপ্তদশ বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিসে (১৭শ বিজেএস) সহকারী জজ পদে আজ রোববার থেকে আবেদন শুরু হয়েছে। ৩১ মার্চ পর্যন্ত আবেদন করা যাবে।

জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশন বিজেএসসি নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে, এবার সহকারী জজ হিসেবে ১০০ জন নিয়োগ পাবেন। তবে পদসংখ্যা বাড়তে বা কমতে পারে। এই পদে নিয়োগ পেলে বেতন স্কেল হবে ৩০,৯৩৫ থেকে ৬৪,৪৩০ টাকা। আবেদন শেষে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা আগামী মে মাসে অনুষ্ঠিত হতে পারে। প্রিলিমিনারি, লিখিত ও মৌখিক পরীক্ষার কেন্দ্র এবং বিস্তারিত সময়সূচি কমিশনের ওয়েবসাইটসহ দৈনিক পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে।

কোনো স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে চার বছর মেয়াদি স্নাতক (সম্মান) অথবা আইন বিষয়ে স্নাতক অথবা কোনো স্বীকৃত বিদেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন বিষয়ে তিন বছর মেয়াদি স্নাতকসহ স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারী হতে হবে। তবে শর্ত হলো, ওই ব্যক্তিকে আইন বিষয়ে স্নাতক বা স্নাতক (সম্মান) বা আইন বিষয়ে স্নাতকোত্তর স্তরে দ্বিতীয় শ্রেণি বা সমমানের সিজিপিএ প্রাপ্ত হতে হবে। আইন বিষয়ে স্নাতক অথবা স্নাতক (সম্মান) অথবা ক্ষেত্রমতে স্নাতকোত্তর পরীক্ষায় অবতীর্ণ কোনো প্রার্থী আবেদনপত্র দাখিল করতে পারবেন। তবে ওই পরীক্ষা আবেদনপত্র দাখিলের শেষ তারিখে বা তার আগে শেষ হতে হবে।

১ জানুয়ারি ২০২৪ তারিখে প্রার্থীর বয়স সর্বোচ্চ ৩২ বছর হতে হবে। বয়সের বিষয়টি গণনা করা হবে এসএসসি/ সমমান পরীক্ষার সনদ অনুযায়ী।

আগ্রহী প্রার্থীদের জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের ওয়েবসাইটে কমিশন কর্তৃক নির্ধারিত ফরম পূরণ করে আবেদন করতে হবে। নিয়োগসংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য এই লিংকে জানা যাবে। অনলাইনে আবেদন করার পর টেলিটক প্রিপেইড মোবাইল নম্বর থেকে এসএমএসের মাধ্যমে নিবন্ধন ফি বাবদ ১ হাজার ২০০ টাকা জমা দিতে হবে।

পরীক্ষার ধরন ও পাস নম্বর

প্রিলিমিনারি পরীক্ষা
সব প্রার্থীকে ১০০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতিতে প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় অবতীর্ণ হতে হবে। ওই পরীক্ষায় মোট ১০০টি এমসিকিউ থাকবে। প্রতিটির মান হবে ১ নম্বর। তবে প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা হবে। সব প্রার্থীকেই লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণের প্রাক্‌-যোগ্যতা হিসেবে প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। এই পরীক্ষায় ন্যূনতম পাস নম্বর ৫০। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় সাধারণ বাংলা, সাধারণ ইংরেজি, বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক বিষয়, সাধারণ গণিত, দৈনন্দিন বিজ্ঞান, বুদ্ধিমত্তা এবং আইন বিষয়ের ওপর প্রশ্ন করা হবে। প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বর কোনো প্রার্থীর লিখিত বা মৌখিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত নম্বরের সঙ্গে যোগ করা হবে না। এ পরীক্ষা-সম্পর্কিত বিস্তারিত তথ্য কমিশনের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ‘তথ্য, নির্দেশনা ও বিস্তারিত সিলেবাস’ নামের পুস্তিকার প্রথম অধ্যায়ের ১৩ নম্বর অনুচ্ছেদে বর্ণিত আছে।

লিখিত পরীক্ষা
১৭শ বিজেএস পরীক্ষা, ২০২৪-এ ১০০০ নম্বরের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। যেসব পরীক্ষার্থী প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবেন, শুধু তাঁরাই লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন। গড়ে ৫০ শতাংশ নম্বর পেলে একজন পরীক্ষার্থী লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন বলে গণ্য হবেন। কোনো পরীক্ষার্থী কোনো বিষয়ে ৩০ নম্বরের কম পেলে তিনি লিখিত পরীক্ষায় অকৃতকার্য বলে গণ্য হবেন।

মৌখিক পরীক্ষা
লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীদের ১০০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। মৌখিক পরীক্ষার পাস নম্বর ৫০। শুধু লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীরা মৌখিক পরীক্ষায় অবতীর্ণ হওয়ার সুযোগ পাবেন। বিজেএস পরীক্ষা একটি প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষা বিধায় ন্যূনতম পাস নম্বর প্রাপ্তি কমিশন কর্তৃক সুপারিশের নিশ্চয়তা প্রদান করে না।

Leave a Reply