ত্বকের জন্য চালধোয়া পানির উপকারিতা

ত্বকের জন্য চালধোয়া পানি কতটা উপকার জানেন?
ত্বকের জন্য চালধোয়া পানি! শুনতে অবাক লাগলেও এটা আসলেও সত্যি। চালধোয়া পানিরও আছে নানান গুণ। যেমন সজীব ত্বকের জন্য চালধোয়া পানি ব্যবহার করেন।অনেকেই রান্নার আগে চাল ধুয়ে পানি ফেলে দেন। এখন থেকে এমনটা আর না করে বরং তা কাজে লাগান। ত্বক থেকে স্বাস্থ্য সব কিছুরই খেয়াল রাখবে চালধোয়া পানি। চালধোয়া পানি কাচের বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে প্রতিদিন তা ব্যবহার করুন। এতে যে উপকার পাবেন তা জানলে রীতিমতো অবাক হয়ে যাবেন।

১. চুল ভালো করে শ্যাম্পু করুন। এরপর কন্ডিশনারের মতো চুলে চালধোয়া পানি লাগান। কয়েক মিনিট তা রেখে ধুয়ে ফেলুন। চালের প্রোটিন চুলের জন্য খুব উপকারী।

২. ত্বকে সংক্রমণ থাকলে দিনে অন্তত দু’বার ১৫ মিনিট করে এই পানিতে গোসল করুন।

৩. চালধোয়া পানিতে আট রকমের অ্যামিনো অ্যাসিড রয়েছে, যা মানুষের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। তাই চালধোয়া পানি খেতেও পারেন।

৪. ব্রণের সমস্যা থাকলে চালধোয়া পানি খুবই উপকারী। তুলাতে এই পানি দিয়ে ব্রণের ওপরে লাগিয়ে রাখুন। এর ফলে ব্রণ তাড়াতাড়ি সেরে যাবে। চাল ধোয়া পানির আরেকটি দারুণ ব্যবহার হলো ফেসিয়াল ক্লিনজার হিসেবে ব্যবহার করা যায়।

৫. রোদে বাইরে গেলে ত্বক পুড়ে দুই রঙের হয়ে যায়। ত্বকের এ রোদে পোড়া ভাব দূর করতে ব্যবহার করতে পারেন চাল ধোয়া পানি। ফ্রিজে রাখা চাল ধোয়া পানি দিয়ে হাত ও মুখ পরিষ্কার করুন। রোদে পোড়াভাব তো যাবেই একই সাথে চুলকানি বা এলার্জি জাতীয় সমস্যা থেকেও মিলবে সমাধান।

৬. ডায়রিয়ারও পথ্য চালধোয়া পানি। এক গ্লাস পনিতে সামান্য লবণ মিশিয়ে তা খেয়ে নিন।

৭. বাইরে থেকে ফিরে ফ্রিজে রাখা ঠাণ্ডা চালধোয়া পনিতে মুখ ধুয়ে নিতে পারেন। তাতে ত্বক তরতাজা হবে। এই পানিতে রয়েছে প্রচুর মিনারেলসহ এমন অনেক উপাদান যা বয়সে তারুণ্য ধরে রাখতে এবং বয়সের ছাপ দূর করতে বেশ কার্যকরী। তাই নিয়মিত চাল ধোয়া পানি দিয়ে মুখ ধোয়ার ফলে আপনি পেতে পারেন সতেজ ত্বক।দেখলেন তো কতটা উপকারী এই ফেলে দেয়া পানি? এখন থেকে চালধোয়া পানি না ফেলে রূপচর্চায় কাজে লাগান। তাতে অনেক উপকার পাবেন।

ত্বকের জন্য চালধোয়া পানির উপকারিতা