শিশুর ক্ষেত্রে রোদের ভূমিকা

শিশুকে কতক্ষণ রোদ লাগাবেন আর রোদ লাগালে উপকার বা ক্ষতি আছে কি না যেনে নিনঃ

👬 শিশুর ত্বকে সূর্যালোকের ‘ আলট্রাভায়োলেট বি ( ২৯০- ৩২০ ন্যানোমিটার ওয়েভ লেংথ) রে ‘ এর বিক্রিয়ায় শরীরের ক্যালসিয়াম মাত্রা বজায় রাখা, দেহ অস্থি কাঠামো অটুট, রোগ প্রতিরোধ শক্তির উজ্জীবন, স্নায়ুতন্ত্র, এন্ডোক্রাইন গ্রন্থি,ক্যান্সার ও নানা রোগ নিরাময়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী
ভিটামিন-ডি উৎপন্ন হয়।

শিশুর ক্ষেত্রে রোদের ভূমিকা


এই রশ্মি যেমন এ ভিটামিনের যোগানদার তেমনি অতিরিক্ত সময় ধরে সরাসরি রোদে রাখার কারণে ত্বকের বার্ণ, হিট স্ট্রোক, বমি, ডারমাটাইটিস,ফোস্কা পরবর্তী ত্বকের ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকির মতো ক্ষতিকর দিকগুলোও উপেক্ষণীয় নয়।

সুতরাং সমগ্র বিষয় বিবেচনা করে শিশু বয়সে রোদ লাগানো নিয়ে পরামর্শ এই –

১. নবজাতক শিশুকে দৈনিক ২ মিনিট মিষ্টি রোদ, সরাসরি না, যেমন বারান্দার রোদ কণার ছোঁয়া দেয়া।

২. ০৬ মাসের কম বয়সী শিশু যেন সরাসরি পড়ে এরকম সূর্যালোকের সংস্পর্শে না আসে।

৩. স্কুল বয়সী শিশুকে সপ্তাহে ২ -৩ দিন, সকাল ১০ টা হতে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত সময়ের মধ্যে দৈনিক ১৫ থেকে ৩০ মিনিটের জন্য রোদ লাগানো হলে শিশুর প্রয়োজনীয় পরিমাণ ভিটামিন-ডি ও তৈরি হবে, আবার শরীরের ক্ষতি ও হবে না।

শিশুর ক্ষেত্রে রোদের ভূমিকা