অনলাইনে ট্রেনের টিকেট কাটার নিয়ম

বাংলাদেশ রেলওয়ে অনলাইনে ও অফলাইনে আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট কাটার জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) বা জন্মনিবন্ধন সনদ দিয়ে নিবন্ধন বাধ্যতামূলক করেছে। ট্রেনের টিকেট কাটতে হলে জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্মনিবন্ধন দিয়ে নিবন্ধন করতে হবে। নিবন্ধনের পরে নির্বাচন কমিশন যাচাই করার পরেই টিকেট কাটা যাবে।

Online train ticket bd

Online train ticket bd
Online train ticket bd

 

অনলাইনে নিবন্ধন প্রক্রিয়া:

https://eticket.railway.gov.bd ওয়েবসাইট অথবা rail sheba app-এ গিয়ে নিবন্ধন (REGISTER) করতে হবে। মোবাইল নম্বর, জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর ও জন্ম তারিখ সঠিক থাকলে ঠিকানা, ইমেইল, পাসওয়ার্ড লিখে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে।

যাদের আগে নিবন্ধন করা আছে, তাদের সাইন ইন (Sign In) করে জাতীয় পরিচয় পত্র verify করতে হবে।

এসএমএসের মাধ্যমে নিবন্ধন পদ্ধতি:

কাউন্টারে টিকেট করার ক্ষেত্রে মোবাইল থেকে মেসেজ অপশনে গিয়ে টাইপ করতে হবে BRNID নম্বর জন্ম তারিখ (সাল/মাস/দিন)। এসএমএস পাঠাতে হবে ২৬৯৬৯ নম্বরে। ফিরতি এসএমএসের মাধ্যমে নিবন্ধন সফল বা ব্যর্থ হয়েছে কিনা, তা জানিয়ে দেয়া হবে। এরপর কাউন্টারে জাতীয় পরিচয়পত্র নম্বর, জন্ম-নিবন্ধন সনদ বা পাসপোর্ট দেখিয়ে টিকেট নেয়া যাবে।

যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই বা যাদের বয়স ১২ থেকে ১৮ বছরের মধ্যে, তারা বাবা বা মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে নিবন্ধন করা অ্যাকাউন্ট অথবা নিজেদের জন্ম নিবন্ধন নম্বর দিয়ে কিংবা জন্ম নিবন্ধন সনদ আপলোড করে নিবন্ধনকৃত অ্যাকাউন্ট দিয়ে টিকেট কিনতে পারবেন। এ অবস্থায় টিকিটের ওপরে মুদ্রিত নামের সাথে যাত্রীর সম্পর্ক যাচাইয়ের জন্য ভ্রমণের সময় বাধ্যতামূলকভাবে জন্ম-নিবন্ধন সনদের ফটোকপি সাথে রাখতে হবে।

বিদেশী নাগরিকরা পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে ও পাসপোর্টের ছবি আপলোড করে নিবন্ধন সম্পন্ন করবে।

সফলভাবে এনআইডি/পাসপোর্ট/জন্ম-নিবন্ধন যাচাই করে নিবন্ধন ছাড়া কোনো যাত্রী আন্তঃনগর ট্রেনের টিকেট কিনতে পারবে না। ভ্রমণের সময় যাত্রীকে অবশ্যই নিজের এনআইডি বা জন্ম নিবন্ধন সনদের ফটোকপি অথবা পাসপোর্ট/ছবি সম্বলিত আইডি কার্ড সাথে রাখতে হবে।

পরিচয়পত্রের সাথে টিকিটের ওপরে মুদ্রিত যাত্রীর তথ্য না মিললে যাত্রীকে বিনা টিকেট ভ্রমণের দায়ে অভিযুক্ত করা হবে এবং বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রচলিত আইন অনুযায়ী ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।