সফল উদ্যোক্তা হওয়ার উপায়

একজন উদ্যোক্তা একটি নতুন ব্যবসায় উদ্ভাবন বা অন্য কোনো ব্যবসায় শুরু করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং ব্যবসায়ের ঝুঁকি বহন করেন আর ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ লাভ একা ভোগ করেন।

How to become an entrepreneur

একজন সফল উদ্যোক্তার গুণাবলী:

১. শৃঙ্খলাবদ্ধ (Disciplined):

এটি একজন সফল উদ্যোক্তার অন্যতম প্রয়োজনীয় বৈশিষ্ট্য। শৃঙ্খলাবদ্ধ ব্যক্তিরা তাদের ব্যবসায়িক কাজ করার দিকে মনোনিবেশ করেন। এবং তাদের লক্ষ্যে যে কোনও বাধা বা বিঘ্ন দূর করার কাজে নিয়োজিত থাকে। সফল উদ্যোক্তারা তাদের লক্ষ্য অর্জনের জন্য প্রতিদিনের পদক্ষেপ নিতে পর্যাপ্ত শৃঙ্খলাবদ্ধ। জীবন ও ব্যবসায় সাফল্যের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুণ স্ব-শৃঙ্খলা। আপনি যদি নিজের মতো করে নিজেকে অনুশাসন করতে পারেন, তাহলে আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারবেন।

২. আত্মবিশ্বাস (Confidence):


উদ্যোক্তা তার ব্যবসায় শুরু করে আত্মবিশ্বাসের সাথে। সে কখনোই তার ব্যবসায় বা উদ্যোগ নিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ থাকে না বরং সফল হওয়ার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে যায়। তাই তারা যা কিছু করে তার মধ্যে সেই আত্মবিশ্বাসকে তারা বহন করে। আত্মবিশ্বাস নিয়ে তারা তাদের কাজে মনোনিবেশ করে এবং সামনে এগিয়ে যায়।

৩. স্ব-উদ্যোক্তা (Self-starter):

উদ্যোক্তারা জানেন যে যদি কিছু করা দরকার হয় তবে তাদের নিজেরাই এটি শুরু করা উচিত। তারা তাদের লক্ষ্য ঠিক করে এবং সেই অনুযায়ী পদক্ষেপ গ্রহণ করে। তারা তাদের কাজে সর্বদা সক্রিয় থাকে, কারো অনুমতির জন্য তারা অপেক্ষা করে না। আপনার মাথায় যদি কোনো আইডিয়া থাকে তাহলে কারো জন্য অপেক্ষা না করে নিজে থেকেই শুরু করুন।

৪. প্রতিযোগিতামূলক (Competitive):

বর্তমানে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান খুবই প্রতিযোগিতামূলক। প্রতিযোগিতামূলক বাজারে সফল হতে হলে আপনাকে অন্যের চেয়ে আরও ভাল কাজ করতে হবে। অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে আরো ভালো মানের মান সম্মত পণ্য বা সেবা প্রদান করতে হবে। তাই একজন উদ্যোক্তাকে প্রতিযোগিতামূলক মনোভাব ধারণ করতে হয়।

৫. সৃজনশীল চিন্তা-ভাবনা (Creative thinking):

একজন উদ্যোক্তা সৃজনশীল মানসিকতাসম্পন্ন হতে হয়। উদ্যোক্তারা যখন তাদের উদ্যোগ শুরু করে তখন নানবিধ সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। এবং সমস্যার সমাধানের জন্য তাদের সৃজনশীল মানসিকতাকে কাজে লাগিয়ে সমাধান খোঁজে বের করতে হয়। তাছাড়াও সৃজনশীল উপায়ে বিভিন্ন ধরণের ব্যবসা শুরু করতে পারে। সৃজনশীলতা একজন উদ্যোক্তাকে অনন্য করে তুলে।

৬. ঝুঁকি গ্রহণ ক্ষমতা (Risk-taking ability):

একজন উদ্যোক্তা যখন উদ্যোগ গ্রহণ করে তখনই সে ঝুঁকি গ্রহণের মানসিকতা নিয়ে তার ব্যবসায় শুরু করে। যেকোনো ব্যবসায় শুরু করলে সেটি লাভবান হতেও পারে আবার ক্ষতিও হতে পারে। তাই উদ্যোক্তাগণ ঝুঁকি গ্রহণের মানসিকতা সম্পন্ন হতে হয়। তবে উদ্যোক্তারা ঝুঁকি গ্রহণের পূর্বে সঠিক পরিকল্পনা করে তাদের লক্ষ্য ঠিক করেন। তাছাড়া, একজন সফল উদ্যোক্তা জানে যে কখন ঝুঁকি নিতে হয় এবং কোন ঝুঁকিটি সংস্থা বা নিজের পক্ষে উপকারী বা ক্ষতিকারক হবে।

৭. দৃঢ় সংকল্প (Determination):

উদ্যোক্তারা ব্যর্থতাকেই শেষ গন্তব্য মনে করে না বরং তারা ব্যর্থতাকে তাদের সাফল্যের সুযোগ হিসাবে দেখে। তাই তারা তাদের সমস্ত প্রচেষ্টা সফল করতে সর্বদা বদ্ধপরিকর। কোনো কিছুতে সফল না হওয়া পর্যন্ত তারা তাদের চেষ্টা থামায় না। সফল উদ্যোকারা মনে করেন যে, কোনো কিছুই অসম্ভব নয়।

৮. নেতৃত্বের দক্ষতা (Leadership Skills):

একজন উদ্যোক্তাকে নেতৃত্ব দেওয়ার দক্ষতা থাকতে হয়। প্রতিষ্ঠানের সকল কর্মীদের কাজে উদ্বুদ্ধ করতে এবং তাদের সাথে সঠিকভাবে যোগাগোগ করতে হলে উদ্যোক্তাকে নেতৃত্ব দানের দক্ষতা থাকতে হবে। সফল উদ্যোক্তারা তাদের কর্মীদের কীভাবে অনুপ্রেরণা করতে হয় তা জানে তাই ব্যবসায় সামগ্রিকভাবে বৃদ্ধি পায়।

৯. অধ্যবসায় (Persistence):

অধ্যবসায় হলো একজন সফল উদ্যোক্তার সবচেয়ে মৌলিক এবং প্রয়োজনীয় গুণ। এটি একটি অনিবার্য গুণ যা জীবনের সমস্ত দুর্দান্ত সাফল্যের চাবিকাঠি। একজন সফল উদ্যোক্তা প্রায়শই অফিসে পৌঁছে প্রথম ব্যক্তি হিসেবে এবং সবার শেষে অফিস থেকে কাজ শেষ করে বের হন। উদ্যোক্তারা তাদের কাজের প্রতি এতই অধ্যবসায় থাকেন যে কাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা কাজে লেগে থাকেন। তারা কখনো আজকের কাজ আগামীকালের জন্য রেখে দেয় না।

১০. প্যাশন (Passion):

একজন সফল উদ্যোক্তার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ গুণ হল প্যাশন। উদ্যোক্তার যে কাজকে ভালোবাসেন সেটিই করেন। তিনি যে কাজ করে আনন্দ পান সেটিই করেন। সুতরাং একজন উদ্যোক্তা তার লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য তার কাজের প্রতি প্যাসন থাকাটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। উদ্যোক্তার মনে উদ্দীপনা তৈরি হওয়া শুরু হয় যখন সে তার কাজকে ভালোবাসেন এবং গ্রহণ করে এবং সেই লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য কঠোর পরিশ্রম করেন।

 

সফল উদ্যোক্তার উদাহরণ:


বিল গেটস:

বিল গেটস আমাদের যুগের একজন অন্যতম বিখ্যাত উদ্যোক্তা। যিনি বিশ্বের সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি ছিলেন। বিশ্বের বৃহত্তম পিসি সফটওয়্যার সংস্থা মাইক্রোসফ্টের সহ-প্রতিষ্ঠাতা। বিল গেটস ছিলেন ব্যক্তিগত কম্পিউটার বিপ্লবের অন্যতম ব্যক্তিত্ব। অ্যালেন, বলমার এবং অন্যদের সহায়তায় গেটস মাইক্রোসফ্টকে বিশ্বের বৃহত্তম এবং প্রভাবশালী প্রযুক্তি সংস্থার অন্যতম হিসাবে গড়ে তুলেছিল।

ইলন মাস্ক:

ইলন মাস্ক দক্ষিণ আফ্রিকার বংশোদ্ভূত আমেরিকান শিল্প প্রকৌশলী এবং একজন সফল উদ্যোক্তা, তিনি পেপালের সহ-প্রতিষ্ঠা এবং মহাকাশ সংস্থা স্পেসএক্স প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তাছাড়া তিনি বহুমুখী প্রযুক্তির উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিত। তিনি বিখ্যাত বৈদ্যুতিন গাড়ি সংস্থা টেসলার প্রাথমিক বিনিয়োগকারীদের একজন সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসাবে নিয়োজিত রয়েছেন। ইলন মাস্ক বিশ্বের ধনী ব্যক্তি হয়ে ওঠেন, তার সম্পদের ১৮৫ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে গেছে।

স্টিভ জবস:

স্টিভ জবস যুক্তরাষ্ট্রের একজন সফল উদ্যোক্তা ও প্রযুক্তি উদ্ভাবক। এ্যাপলের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে আমরা সবাই তাকে সহজেই চিনি। ১৯৭৬ সালের ১ এপ্রিল অ্যাপল কম্পিউটার সংস্থা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল স্টিভ জবস এবং সহ-প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ ওয়াজনিয়াক এর মাধ্যমে। তাঁর মৃত্যুর সময়, তাঁর সম্পদ ৮.৩ বিলিয়ন ডলারেরও বেশি ছিল।

উদ্যোগ যেকোনো বিষয়েই হতে পারে তবে সেটি অবশ্যই মুনাফা অর্জনের উদ্দেশ্যে হতে হবে এবং সেখানে ঝুঁকি বিদ্যমান থাকবে। যেকোনো সুস্থ মস্তিষ্কের ব্যক্তিই উদ্যোক্তা পারে, আর যিনি ব্যবসায়ের উদ্যোগ গ্রহণ করেন তিনিই উদ্যোক্তা।

Related Posts

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ

বায়োফ্লক হল উপকারি ব্যাকটেরিয়া, অণুজীব ও শৈবালের সমম্বয়ে তৈরি হওয়া পাতলা আস্তরণ। যা জলকে ফিল্টার করে। জল থেকে নাইট্রোজেন জাতীয় ক্ষতিকর উপাদানগুলি শোষণ করে নেয় এবং এর প্রোটিন সমৃদ্ধ উপাদান খাবার হিসেবে মাছ গ্রহণ করতে পারে। biofloc fish farming বায়োফ্লকে মাছ চাষের জন্য পানি ব্যবস্থাপনা ও ফ্লক একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যেকোনো মাছ বা চিংড়ি চাষ […]

এজেন্ট ব্যাংকিং ব্যবসা

আর্থিক অন্তর্ভুক্তির লক্ষ্যে ব্যাংকিং সুবিধাবঞ্চিতদের সেবা দিতে ২০১৭ সালে এজেন্ট ব্যাংকিং সেবা চালু করা হয়। গ্রামাঞ্চলের মানুষকে সেবা দেওয়া এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের মূল লক্ষ্য। ব্যাংকের শাখা নেই এসব এলাকায় নিজস্ব বিক্রয় প্রতিষ্ঠান রয়েছে, এমন ব্যক্তি ব্যাংকের এজেন্ট হতে পারেন। কোনো ধরনের বাড়তি চার্জ ছাড়া এ সেবা দেওয়ার নিয়ম রয়েছে। এজেন্ট ব্যাংকিংয়ে কোনোভাবেই গ্রাহক যেন প্রতারিত না […]

রঙিন মাছ চাষ পদ্ধতি

আমদের দেশে রঙিন মাছগুলোর বর্তমানে বেশ চাষাবাদ করা হচ্ছে। রঙিন মাছের চাষ বিভিন্ন প্রজাতির জন্য বিভিন্ন রূপ৷ এই মাছের মধ্যে কিছু আছে আমাদীর দেশী এবং কিছু আছে বাইরের দেশের। এই সকল মাছ বাড়িতে চৌবাচ্চার মধ্যে চাষ করলে দেখতে অনেক সুন্দর লাগে। আপনি ইচ্ছা করলে এই মাছ আপনার বাড়িতে চৌবাচ্চায় এই মাছের চাষ করতে পারেন। Goldfish […]

উদ্যোক্তা মানে কি

উদ্যোক্তা হলো এমন একজন ব্যক্তি যিনি তার কর্মসংস্থানের জন্য নতুন ব্যবসার পন্থা তৈরি করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন। একজন উদ্যোক্তা ব্যবসায়ের ঝুঁকি বহন করে এবং ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ মুনাফা একা ভোগ করেন। সুতরাং, একজন উদ্যোক্তা একটি নতুন ব্যবসায় উদ্ভাবন বা অন্য কোনো ব্যবসায় শুরু করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন এবং ব্যবসায়ের ঝুঁকি বহন করেন আর ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ লাভ […]

You are currently viewing সফল উদ্যোক্তা হওয়ার উপায়
How to become an entrepreneur

Leave a Reply