পেশা হিসেবে সাংবাদিকতা

Journalism jobs
Share in social media...

একজন সাংবাদিক প্রধানত সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন, রেডিও, টেলিভিশন এবং ওয়েব পোর্টালের জন্য সংবাদ সংগ্রহ করেন, সংবাদ ও কলাম লেখেন, সম্পাদনা করেন, পরিমার্জন করেন, উপস্থাপন করেন এবং ছবি সংগ্রহ করেন।

Journalism বা সাংবাদিকতা কি ?

বিভিন্ন স্থান, ক্ষেত্র, বিষয় ইত্যাদিকে ঘিরে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংবাদ সংগ্রহসহ বিভিন্ন ধরনের তথ্য সংগ্রহপূর্বক সংবাদ কিংবা প্রতিবেদন রচনা করে সংবাদমাধ্যমসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমের মাধ্যমে জনসাধারণের কাছে তথ্য তুলে ধরাই হলো Journalism বা সাংবাদিকতা ।

একজন সাংবাদিকের কাজের ধরন: একজন সাংবাদিকের কাজের ধরন সংগঠনের ধরন অনুযায়ী পরিবর্তিত হয়। কিন্তু যে কোন উপায়ে কিছু সাধারণ কাজ আছে। যেমন, সংবাদ সংগ্রহ করা, খবরের সত্যতা যাচাই করা, সংবাদ সম্পাদনা করা, প্রয়োজনে মানুষের সাক্ষাৎকার নেওয়া, বিশেষ প্রতিবেদন তৈরি করা, কলাম লেখা ও সাজানো, তথ্য ও উপাত্ত বিশ্লেষণ করা, প্রয়োজনীয় ছবি সংগ্রহ করা। যেহেতু গণমাধ্যম সাধারণ মানুষের জীবনে সরাসরি প্রভাব ফেলে, তাই বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ সরবরাহ করা একজন সাংবাদিকের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। উপরন্তু, সংবেদনশীল সংবাদ প্রকাশের ক্ষেত্রে তথ্যদাতার গোপনীয়তা রক্ষা করা বাঞ্ছনীয়।

Journalism বা সাংবাদিকতার কর্মক্ষেত্র

আমাদের দেশে বিভিন্ন স্তরে সাংবাদিকদের জন্য অনেক কাজের সুযোগ রয়েছে। যেহেতু সাংবাদিকতার ক্ষেত্রটি বেশ বড়, তাই অনেকে নির্দিষ্ট বিভাগের দিকে মনোযোগ দেন। উদাহরণস্বরূপ, ক্রীড়া সাংবাদিকরা কেবল খেলাধুলা সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে কাজ করেন। আপনি সংবাদপত্র, ম্যাগাজিন, রেডিও, টেলিভিশন, সরকারি সংবাদ জানালা, অনলাইন নিউজ পোর্টাল, বিজ্ঞাপন সংস্থা, প্রকাশনা সংস্থা, গবেষণা প্রতিষ্ঠানগুলিতে আরও বেশি কাজ করতে পারেন।

প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়া: বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় ৩২ টি দৈনিক সংবাদপত্র এবং ৪ টি স্বীকৃত অনলাইন নিউজ পোর্টাল প্রতিদিন বাংলা ও ইংরেজিতে প্রকাশিত হচ্ছে। এগুলোতে সাংবাদিকতার দারুণ সুযোগ রয়েছে। সংবাদ সংস্থাগুলির মধ্যে, আপনি রাষ্ট্রায়ত্ত বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা এবং বিভিন্ন বেসরকারিভাবে পরিচালিত সংবাদ সংস্থায় সম্পাদক, উপ-সম্পাদক, প্রতিবেদক বা কলাম লেখকের কাজ পেতে পারেন।

টিভি এবং রেডিও: বাংলাদেশে অনেক টিভি চ্যানেল আছে। ফটোগ্রাফার, রিপোর্টার, উপস্থাপক, সম্পাদক, প্রযোজক, নিউজারুম কন্ট্রোলার হিসেবে চাকরির সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশ বেতার ছাড়াও বর্তমানে অনেক প্রাইভেট এফএম স্টেশন রয়েছে। মূলধারার সাংবাদিকতা ছাড়াও অনেকেই ইতিমধ্যে সংবাদ পাঠক, উপস্থাপক, সম্পাদক, প্রতিবেদকসহ বিভিন্ন পদে কাজ করছেন।

অন্যান্য গণমাধ্যম: অনেক সরকারি ও বেসরকারি অফিসে গণযোগাযোগ কর্মকর্তা রয়েছেন। তারা মুদ্রণ, প্রকাশনা, বিপণন এবং যোগাযোগের কাজ করে। এছাড়াও, বিজ্ঞাপন সংস্থা এবং চলচ্চিত্র বিভাগে সাংবাদিকদের কাজের সুযোগ রয়েছে। অনেকে নির্দিষ্ট প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ না করেই ফ্রিল্যান্সিং করেন।

Jornalism বা সাংবাদিকতার যোগ্যতা

প্রত্যেক সাংবাদিকের প্রাতিষ্ঠানিক সাংবাদিকতা(Journalism) বা গণযোগাযোগ সম্পর্কে পড়ার প্রয়োজন নেই। বাংলা, ইংরেজি সাহিত্য, অর্থনীতি, আন্তর্জাতিক সম্পর্কসহ অন্যান্য বিষয়ে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রিধারীরাও এই পেশায় নিয়োজিত। যাইহোক, যারা ইতিমধ্যে সাংবাদিকতাকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন, তাদের জন্য সাংবাদিকতা(Journalism) এবং গণযোগাযোগ অধ্যয়ন করা ভাল।

বয়স এবং অভিজ্ঞতা: প্রতিষ্ঠানের সাপেক্ষে বয়সসীমা নির্ধারিত হয়। কাজের সাথে সম্পর্কিত অভিজ্ঞতা প্রয়োজন।

ভাষাগত দক্ষতা: বাংলা এবং ইংরেজী, উভয় ভাষারই ভালো কমান্ড থাকা জরুরি।

অনুসন্ধানমূলক মনোভাব: কোনো বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে তথ্য সংগ্রহের মানসিকতা থাকতে হবে।

যোগাযোগ দক্ষতা: বিভিন্ন স্তরের মানুষের সাথে যোগাযোগের অভ্যাস থাকা প্রয়োজন।

উপস্থাপনার জ্ঞান: পাঠক বা শ্রোতাদের কাছে সংবাদ উপস্থাপনের বিষয়ে জ্ঞান থাকতে হবে।

লেখার দক্ষতা: এই পেশায় বিভিন্ন ধরনের লেখায় অভ্যস্ত হওয়া জরুরি।

বিশ্লেষণ ক্ষমতা: কিছু কিছু ক্ষেত্রে শুধুমাত্র তথ্যের উপর নির্ভর না করেই লিখিত বা সংবাদে যৌক্তিক চিন্তা প্রকাশ করা প্রয়োজন। কিছু প্রযুক্তিগত জ্ঞান দিয়ে আপনি অনেকের থেকে এগিয়ে থাকতে পারেন। ফটোশপ বা ইলাস্ট্রেটরের মূল বিষয়গুলি শিখতে সাহায্য করবে। এর বাইরে যদি আপনি ফেসবুক, টুইটার, লিঙ্কডইন এবং অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাথে জড়িত থাকেন, তাহলে আপনার কাজ অনেক সহজ হবে। একজনের পছন্দ সম্পর্কে আগে থেকেই জানা উচিত। উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি ক্রীড়া সাংবাদিক হতে চান, তাহলে খেলাধুলার বই, ম্যাগাজিন এবং ওয়েবসাইট থেকে আপডেট পাওয়ার অভ্যাস থাকা দরকার। একজন সাংবাদিক হিসেবে আপনার জন্য কপিরাইট আইনের জ্ঞান থাকা জরুরি। শেষ জিনিস যা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ তা হল সৃজনশীলতা। তাই আমি ক্রমাগত নিজেকে সৃজনশীল করার চেষ্টা করতে চাই। আপনি যদি একটি সংবাদপত্রে ইন্টার্নশিপ করার সুযোগ পান, তাহলে আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন। কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে চাকরিদাতাদের পছন্দ করা যেতে পারে।

পেশা হিসেবে সাংবাদিকতা


পেশা হিসেবে সাংবাদিকতা(Journalism) এদেশে এখন পূর্বের চেয়ে অনেক বেশি ইতিবাচক এবং সম্ভাবনাময়। বিশ্বায়নের প্রভাবে এবং গণতন্ত্র বিকাশের সাথে সাথে মিডিয়া, রাষ্ট্রযন্ত্র ও সমাজের অন্যতম শক্তিশালী অংশ হয়ে দেখা দিচ্ছে। ফলে প্রসারের সুযোগ পাচ্ছে সংবাদ মাধ্যমগুলো। দেশি সংস্থাগুলোর পাশাপাশি বিদেশীরাও আগ্রহ দেখাচ্ছে সম্ভাবনাময় এ সেক্টরে। আসছে বিপুল পরিমাণ বিদেশী বিনিয়োগ। ফলে বিনোদনমূলক টিভি ও রেডিও চ্যানেলের পাশাপাশি বাংলাদেশে ২৪ ঘন্টার বাংলা নিউজ চ্যানেল ও মিউজিক চ্যানেল চালু হচ্ছে। প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে সংবাদ কেন্দ্রিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান- সংবাদ সংস্থাগুলো। এই কিছুদিন আগেও যেখানে সাংবাদিকতা বলতে সংবাদপত্রে কাজ করা বুঝাতো সেখানে এখন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার অপ্রতিরোধ্য অবস্থা। ফলে প্রিন্ট মিডিয়া এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া যৌথভাবে সাংবাদিকতার ক্ষেত্রকে করছে অনেক বেশি প্রসারিত। প্রসারের সাথে সাথে বাড়ছে প্রতিযোগিতা।

কোথায় পড়বেন সাংবাদিকতা

বাংলাদেশের প্রায় সব সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা(Journalism) ও গণযোগাযোগ শেখানো হয়। কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় হলো- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, স্বাধীন বিশ্ববিদ্যালয়, ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস, স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়, মূলধারার বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে প্রেস ইনস্টিটিউট, বাংলাদেশ সাংবাদিকতা ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ইনস্টিটিউট ইত্যাদি। আরো কিছু প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন মেয়াদে সাংবাদিকতায় ডিপ্লোমা কোর্স চালু করে।